সামনের মানুষ কে পেছনে রাখা, অন্ধকারে ঢাকা মেধাবী’র মেধা! মো. ইমাউল হক পিপিএম

প্রকাশিত: ৫:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২১ | আপডেট: ৫:৫০:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক :

দেখেছি। দেখছি। হয়ত আরো দেখব।সবে মাত্র শুরু। হতাশ হওয়ার কিছুই নেই। এভাবেই এগিয়ে যেতে হবে।ভাল করার ইচ্ছা থাকলে প্রতিযোগিতা করে, জিতে যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।ভাল সাফল্য অনেক সময়ই নিজেই প্রচার করতে হয়।

পিছন বেঞ্চের ছাত্র যে সামনের বেঞ্চের ছাত্র কে তার কোম্পানিতে চাকুরী দেয় সেটা নতুন নয়।কিন্ত চাকরি করতে যেয়ে অনেক সময়ই সনদ পত্র নিতে হয় তার নিকট থেকে ।আপত্তি তো এখানে আসে।শির নত হয়ে মস্তিষ্ক আর মস্তক কে এক অর্থের ভিন্নতা দেয় মেধাবীকে, আর হাতে তালি দিতে হয় অজ্ঞতার হাতে র কলমে দেওয়া অভিজ্ঞতার সনদ কে।

চাকরি করবেন সেখানেও জটিল পরীক্ষা ও কঠিন সমীকরন।এবার ম্যানেজার, বা ইউনিট প্রধান হবেন কিন্ত এখানেও দফায় দফায় পরীক্ষিত হতে হবে।প্রতিদিন ই আপনার সদ ইচ্ছা ও যোগ্যতার প্রমান দিতে হবে।চাইলে আপনার মেধা বিনিয়োগ করতে পারবেন না ।তার জন্য হাত উঠাতে হবে।

আপনি ম্যানেজার হবেন, ইউনিট প্রধান হবেন, এক্সিকিউটিভ হবেন, অফিস প্রধান হবেন সব ক্ষেত্রেই নতুন নতুন যোগ্যতার প্রমাণ দিতে হবে।আর ক্ষনে ক্ষনে সজাগ থাকতে হবে সেটা টিকিয়ে রাখতে ।সারা বিশ্বের যোগ্যতমদের একই যাত্রা!একই মাত্রা।

আপনি চাইলেই নিজের জ্ঞান ছড়াতে পারবেন না ।বাড়ীতে মাইক দিয়ে নিজের বক্তব্য দিলে হবে না।তা শোনার জন্য মানুষ লাগবে।আদর্শ শিখাবেন ফলোয়ার লাগবে।কৌশল শিখাবেন কর্মশালা লাগবে। সাথে লাগবে কর্মঠ শিক্ষার্থী।দ্বৈ রথে পড়ে কাঁপতে হবে কার ধমকে যে কখন পড়ে যান।

কিন্ত আপনি চাইলেই খারাপ হতে পারবেন। নিজের কু-মনবৃত্তি চরিতার্থ করতে আপনি ই যথেষ্ট। রাতে চাইলেই একজন লোক চুরি করতে,ডাকাতি করতে যেতে পারবে ।সহজেই কেউ নিবৃত্ত করবে না।অনেকেই ভয় পাবে ।খারাপ, নষ্ট, ভষ্ঠ মানুষ জঘন্য কাজ করবে।কিন্ত তাদের প্রতিযোগিতা দিয়ে চোর হতে হয় না ,ডাকাত হতে হয় না।মূল্যবোধ হারিয়ে লোভ লালসা আর হিংস্র তা দরকার। চোরে চোরে আবার মিল হবে।ডাকাত ডাকাতের বাড়ী কোন দিন ডাকাতি করবে না।চোর চোরের কথা পুলিশ কে বলবে না ।খারাপ রা কিন্ত নিজেদের কথা বলে দেয় না ।অভিন্ন কিন্ত ইউনাইটেড।

যোগ্যতমদের প্রতিযোগিতার শেষ নাই।সমালোচনার অন্ত নেই।পিছন টানার রশির অভাব নেই।নদীর বাঁকে একবার যদি পড়ে যায় সবাই হৈ হৈ করে হাসে আর তালি দেয়।কিন্ত কেন?বছর বছর যোগ্যতম লোকের জন্ম হয় না।শুভ আর ভাল এর বলিদান বছরে ঘটে না ।যুগে কদাচিৎ, শতাব্দীতে একবার হয়।তাই উপযুক্ত দের ধারন করতে হবে।অসুস্থ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মেধাবী দের পিছনে দিলে মুলত সবাই পিছিয়ে যাবে।অযথা দোষ ধরে
সামনের মানুষদের পিছনে রাখা মানুষই সভ্যতাকে চেপে ধরে।।

ঢাল নাই ,তলোয়ার নাই ,তুংগে নিধি রাম ।বুদ্ধি নাই কৌশল নেই ,নাম তার পালোয়ান।ধারনা নেই,জানা নেই,দৃষ্টিকোণ এর দৃশ্যমান দৃষ্টান্ত ক্ষয় হতে হতে
দেশ, জাতি সর্বশান্ত। তবুও দাদা বাবু ,কাকা বাবু নমস্কার, সালাম। মেধাহীন মাথা তার খন্ডিত দেহের মৃত আংশিক বিচরন।এ যেন থেমে থাকা ,অন্ধকারে ঢাকা মূর্খে ভরা কলংকের বসুন্ধরা।।

বার বার আসে ,বার বার যায়, শত চেষ্টায় পারে নাই। মেধাবীরা পর্দায় চাপা পড়া!সম্মান আর লজ্জায়!! হায়!হায়!!

লেখক:
মোঃ ইমাউল হক পিপিএম ইন্টেলিজেন্স এন্ড মিডিয়া সেল ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন কক্সবাজার।